কান্তনগর গ্রাম ও জামে মসজিদের সংক্ষিপ্ত ইতিহাস

কান্তনগর গ্রাম ও জামে মসজিদের সংক্ষিপ্ত ইতিহাস

কান্তনগর গ্রাম ও জামে মসজিদের সংক্ষিপ্ত ইতিহাস
কান্তনগর গ্রাম ও জামে মসজিদের সংক্ষিপ্ত ইতিহাস

এখানে মন্দিরের কোন জায়গায় মসজিদ নির্মাণ করা হচ্ছে না। বরং মুসল্লীদের জায়গা সংকুলান না হওয়ায় ১৯৪৯ সালে প্রতিষ্ঠিত ৭৫ বছরের পুরাতন মসজিদের জমিতে মসজিদের পুননির্মাণ চলছে। যেটা কান্তনগর মন্দিরের এক কিলো পূর্বে অবস্থিত যেখানে পুরো কান্তনগর মৌজায় কোন হিন্দু নাগরিকের বাস নাই ।

১৯৭৬ সালের আপোষনামায় তৎকালীন জেলা প্রশাসক মহোদয় মসজিদের নামে উক্ত জমি বরাদ্দ দেয় এবং তার মাধ্যমে সেখানে মসজিদের মালিকানা প্রতিষ্ঠিত হয়।সেটার প্রমাণ দলীল আকারে সংরক্ষিত আছে কিন্তু কুচক্রী মহল তা মানতে চায় না। এখানে প্রায় ৭৫ বছর ধরে মসজিদ আছে এটা এলাকার সকল হিন্দুও জানে যেটা একটা মীমাংসিত ইস্যু।

কান্তনগর গ্রাম জামে মসজিদের পুন:নির্মাণ কাজ বন্ধের নির্দেশ
কান্তনগর গ্রাম জামে মসজিদের পুন:নির্মাণ কাজ বন্ধের নির্দেশ

তারপরে ২০১৫ সালে তৎকালীন সংসদ সদস্য মনোরঞ্জন শীল গোপাল সেই মসজিদে অনুদান দিয়েছিলেন যার প্রমান আছে। কিন্তু কিছু কুচক্রী মহল হিন্দু-মুসলিম দাঙ্গা বাধিয়েছে রাজনৈতিক ফায়দা হাসিলের জন্য এটাকে মন্দিরের জমিতে মসজিদ নির্মাণ করা হচ্ছে বলে প্রচার করছে।

কান্তনগর রাজদেবত্তর এস্টেটের জমিতে মসজিদ নির্মাণ নিষিদ্ধ ঘোষণা

মসজিদের জমিতে মসজিদের পুননির্মাণ চলছে এখানে কারো প্রতি জুলুম করা হয়নি বরং মসজিদের পুননির্মাণ কাজ বন্ধ করে মসজিদ এবং এলাকার সাধারণ মুসলমানদের উপর জুলুম করা হয়েছে।
এবং মুসলমানদের অধিকার কেড়ে নেয়া হচ্ছে।

কান্তজী মন্দিরের জায়গা দখল করে মসজিদ নির্মাণ!

দিনাজপুরের কাহারোলে ঐতিহ্যবাহী কান্তজিউ মন্দিরের জমিতে মসজিদ নির্মাণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। অভিযোগ আছে, জেলা প্রশাসকের কার্যালয় থেকে ভুয়া কাগজপত্র তৈরি করে এই স্থাপনা নির্মাণ করা হচ্ছে। কান্তনগর গ্রামে রাজ দেবোত্তর এস্টেটের জমিতে মসজিদ নির্মাণের ঘটনায় সনাতন ধর্মাবলম্বীদের মধ্যে চাপা ক্ষোভ বিরাজ করছে। স্থানীয়দের অভিযোগ, দিনাজপুর-১ আসনের বর্তমান সংসদ সদস্য জাকারিয়া জাকা এ কাজে সহযোগিতা করছেন। গত ১ মার্চ সবকিছু জেনেশুনেও মসজিদ নির্মাণকাজের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন

করেছেন তিনি।

এ নির্মাণকাজ বন্ধ চেয়ে জেলা প্রশাসক বরাবর লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন দিনাজপুর রাজ দেবোত্তর এস্টেটের এজেন্ট রণজিৎ কুমার সিংহ। জেলা ও উপজেলা প্রশাসন বলছে, অভিযোগের পর নির্মাণকাজ বন্ধ রয়েছে। উভয় পক্ষের কাগজপত্র যাচাই-বাছাই শেষে সিদ্ধান্ত হবে। তবে স্থানীয় লোকজনের অভিযোগ, মসজিদের নির্মাণকাজ চলমান রয়েছে।

এদিকে পুরাকীর্তি সমৃদ্ধ হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের পবিত্র তীর্থস্থান দিনাজপুরের ঐতিহাসিক কান্তজিউ মন্দিরের দেবোত্তর ভূমিতে অবৈধভাবে মসজিদ নির্মাণের উদ্যোগ গ্রহণে গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছে বাংলাদেশ হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদ। মন্দিরের অস্তিত্ব রক্ষায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন পরিষদের নেতারা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *